Skip links

Victoria model duplex Building

৳ 55.00

Dulpex Building

Area: 1800 sft ground floor and 1st floor has 1800 sft

BED Room: Four(04nos)

M.BED Romm: two ( 2 nos)

Dinning and drawing room available

Kitchen: one

Toilets: Four

Design charge: square feet 55 tk

Call Now

Description

ডিজাইন বলতে মুলত বেশ কিছু ডিজাইন এর সমষ্টিকে আমরা বুঝিয়ে থাকি। এই ডিজাইনগুলো হচ্ছে

নির্মাণকারি.কম এর রয়েছে ২০০+ দক্ষ কন্সাল্টেন্ট এবং আর্কিটেক্ট , ইঞ্জিনিয়ার , এস্টিমেটর এবং থ্রিডি ভিজুয়ালাইজার আমাদের কন্সাল্টেন্ট এবং ফ্রিলান্সার আর্কিটেক্ট,ইঞ্জিনিয়ার,এস্টিমেটর এবং থ্রিডি ভিজুলাইজার । তাই নির্মাণকারি .কম সব সময় সঠিক ভাবে ভালো কোয়ালিটির ডিজাইন করার জন্য পর্যবেক্ষণ করে থাকে আমরা বাংলাদেশ এমনকি দক্ষিণএশিয়ার মধ্যে একমাত্র অনলাইন ডিজাইন ফার্ম হিসাবে কাজ করছে। আমরা প্রতি মাসে প্রায় ১০০+ কন্সাল্টেন্ট সার্ভিস দিয়ে থাকি। দেশের প্রতিটি বিভাগের কিছু না কিছু জেলায় আমাদের কাজ চলছেই। আমরা যেকোন ডিজাইন যথেস্ট দক্ষতার সাথে পর্যবেক্ষণ এবং দ্রুততার সাথে সাঠিক ভাবে করে দেই।

) আর্কিটেকচারাল ডিজাইনঃআর্কিটেকচারাল ডিজাইন হচ্ছে বিল্ডিং ডিজাইন এর প্রথম ধাপ। এই কাজ করবে একজন আর্কিটেক্ট এবং অবশ্যই তাকে বিএসসি আর্কিটেক্ট হতে হবে। বিশেষ করে হাইরাইজ এবং ডুপ্লেক্স ডিজাইন এর ক্ষেত্রে। প্রথমে আপনি কেমন ডিজাইন চাচ্ছেন এবং ডিজাইনে কি কি চাচ্ছেন সে ব্যাপারে ব্রিফিং হবে তার পরে আর্কিটেক্ট ডিজাইন এর কাজ শুরু করবেন। প্রাথমিক ভাবে একটি ডিজাইন দেখানোর পরে সেটার উপরে চেঞ্জ হবে এবং কিছু কাটছাটের পরেই ডিজাইনটি ফাইনাল হবে পরবর্তী কাজের জন্য মনে রাখবেন ইঞ্জিনিয়ার কখনো আর্কিটেক্ট এর কাজ করে না। অনেক লোকাল এরিয়াতে দেখা যায় ইঞ্জিনিয়ার নিজেই আর্কিটেকচারাল ডিজাইন করে ক্লায়েন্টকে কিছু একটা বুঝিয়ে দেন। যেটা সম্পুর্ণ ভাবে ভুল এবং অসম্পুর্ণ একটা কাজ।

) থ্রিডি ডিজাইনঃএর পরেই আর্কিটেকচারাল ডিজাইন যাবে থ্রিডি ভিজুয়ালাইজার এর কাছে। অনেক সময় আর্কিটেক্ট নিজেই থ্রিডি ডিজাইন করে থাকেন। তবে ভিজুয়ালাইজার কাজ করলে কাজের সৌন্দর্য বজায় থাকে থ্রিডি ভিজুয়ালাইজার এর মুল কাজ হচ্ছে সুন্দর একটি বাড়ির শেইপ নিয়ে আসা। অনেক সময় থ্রিডি ভিজুয়ালাইজার আর্কিটেক্ট এর অনুমতি সাপেক্ষে ডিজাইনে কিছু বাড়তি কাজ করেন যা পরবর্তিতে ডিজাইনে আর্কিটেক্ট এডজাস্ট করে দেন।

) স্ট্রাকচারাল ডিজাইনঃস্ট্রাকচারাল ডিজাইনার এর কাজ হচ্ছে মুলত এই যে আর্কিটেকচারাল ডিজাইনটি তৈরি হলো তাতে কলাম, বীম এবং স্লাব এর রড এর ডিটেইলস ডিজাইন করা এবং ফাউন্ডেশন এর ডিটেইলস এর ডিজাইন করা। এই কাজ করতে অবশ্যই সয়েল টেস্ট রিপোর্ট এর সহযোগিতা নেবেন। সয়েল টেস্ট রিপোর্ট ছাড়া কোন স্ট্রাকচারাল ডিজাইন মোটেই গ্রহনযোগ্য নয়।

) ইলেকট্রিক্যাল ডিজাইনঃপরের ধাপের কাজ হচ্ছে এই ডিজাইন এর উপর ভিত্তি করে ইলেকট্রিক্যাল ডিজাইন করা। ইলেকট্রিক্যাল ডিজাইন গুরুত্বপুর্ন এই জন্যে যে,
প্রায়ই দেখা যায় বিল্ডিং বানানোর পরে ইলেকট্রিক্যাল ওয়ারিং এর জন্য বীম কলাম কাটা হয়। যা বিল্ডিং এর লং টাইম স্ট্যাবিলিটি নস্ট করে দেয় এবং স্থায়িত্ব নস্ট করে দেয়। তাই প্রতিটা পয়েন্ট যেমন লাইট, ফ্যান, সুইচিং পয়েন্ট, এসির পয়েন্ট, এডজাস্ট ফ্যান, টিভির লাইন, ইন্টারনেট এবং পিএবিএক্স এর লাইন এর ডিটেইলস থাকবে।

) প্লাম্বিং ডিজাইনঃএর পরেই প্লাম্বিং ডিজাইন এর কাজ হবে। বাড়ি করার পরে সবগুলা পাইপ উলঙ্গ অবস্থায় বের হয়ে থাকে যা আপনার সুন্দর বাড়িটাকেই উলঙ্গ করে সম্পুর্ন দৃষ্টিকটু করে ফেলে। তাই প্লাম্বিং ডিজাইন করিয়ে নিতে হবে। প্লাম্বিং ডিজাইন এর মধ্যে প্রতিটি বাথরুমে গিজার এর ব্যাবস্থা থাকবে। পুরো বাথরুমে হট এবং কোল্ড পাইপিং এর ব্যাবস্থা থাকবে এবং বাথরুমগুলো সুন্দর করে সাজানোর জন্য সমস্ত ব্যবস্থা থাকবে। এছাড়া কিচেনের লাইন এবং অন্যান্য পাইপিং এর জন্য আলাদা একটা ডিজাইন থাকবে।

) ফায়ার সেফটি ডিজাইনঃএটি মূলত হাইরাইজ ভবনগুলোর জন্য বেশি প্রয়োজন হয়। ফায়ার সেফটি ডিজাইন এর কাজ মূলত করবে ফায়ার সম্পর্কে অভিজ্ঞ ইঞ্জিনিয়ার। প্রায়ই দেখা যায় এই ডিজাইনে কোন গুরুত্ব দেয়া হয় না যা পরবর্তীতে ভবনে ভয়াবহ সব দুর্ঘটনার জন্য দায়ী থাকে।

) এস্টিমেটিং এবং কস্টিংঃ– সব শেষে পুরো প্রজেক্টটি যাবে এস্টিমেটর এর কাছে। প্রতিটি কন্সাল্টেন্ট প্রতিষ্ঠানে রয়েছে অভিজ্ঞ এস্টিমেটর যাদের কাজ হচ্ছে প্রতিটি প্রজেক্ট এর একটি সঠিক এস্টিমেট এবং কস্টিংবের করা। আমরা এস্টিমেট এবং কস্টিং বলতে বুঝি যে কত টাকা খরচ হলো তার হিসাব। আসলে এটি সম্পূর্ন টিক নয়। এস্টিমেট দুটি আলাদা বিভাগ আছে একটি হচ্ছে প্রয়োজনীয় মালামালের কোয়ান্টিটি বের করা এবং অন্যটি হচ্ছে সেই মালামালের বর্তমান বাজার দর হিসেব করা। এখানে মালামালের কোয়ান্টিটি হচ্ছে গুরুত্বপূর্ন প্রতিটি ফ্লোরে প্রতিটি আইটেম মালামাল কতটুকুন লাগছে সেই হিসেব করাটাই হচ্ছে আসল কাজ। এই হিসেব কাজে আসে বিল্ডিং এর মালামাল কেনার কাজে এবং অডিটিং এর কাজে। প্রায় বিল্ডিং এর নির্মান জনিত কাজে দুর্নীতি হয় যা খুব সহজে প্রাথমিক ভাবেই আটকানো যায় যদি সঠিক ভাবে এস্টিমেট এবং কস্টিং করা হয়।

) এপ্রোভাল ডিজাইনঃএপ্রোভাল ডিজাইন এখন একটি অত্যাবশ্যকীয় এবং গুরুত্বপূর্ণ কাজ। বাংলাদেশ সরকার এর নিয়ম অনুযায়ি প্রতিটি জেলায় এবং উপজেলায় ভবন নির্মান এর কাজ করাতে হলে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতির প্রয়োজন হয়। সেটা রাজউক, সিটিকর্পোরেশন ,পৌরসভা, উপজেলা বা ইউনিয়ন অফিস এর থেকে উক্ত বিল্ডিং নির্মাণ এর অনুমতি নিতে হবে। এখানে উক্ত প্রতিষ্টান এর নিয়ম অনুযায়ী ডিজাইন শিট প্রস্তুত করে নির্দিষ্ট কাগজে প্রিন্ট করে আর্কিটেক্ট এবং ইঞ্জিনিয়ার স্বাক্ষর করবেন এবং প্লান পাশের জন্য সাবমিট করবেন।নির্মানকারি.কম আপনাকে সব ধরনের সহায়তা করবে।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “Victoria model duplex Building”

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Name *

Review *

Vendor Information